bartajogot24@gmail.com রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ই ফাল্গুন ১৪৩০

শীতের পারদ তেঁতুলিয়ায়

পঞ্চগড় প্রতিনিধি

প্রকাশিত:
২৮ জানুয়ারী ২০২৪, ২১:৪২

ছবি : সংগৃহীত
উত্তরের শিশিরঝরা হিমশীতল বাতাস আর ঘন কুয়াশায় পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া নেমেছে শীতের পারদ। কাবু হয়ে পড়েছেন বাসিন্দারা। কমে গেছে কাজকর্ম। অভাব-অনটনে পড়েছেন নিম্ন আয়ের মানুষেরা। 
 
এইরমধ্যে গতকাল উপজেলায় চলতি শীত মৌসুমে সর্বনিম্ন ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।
 
আজ সকাল ৯টায় এ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে। এর একদিন আগে গত শুক্রবার তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল ৫ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তাপমাত্রা রেকর্ডের তথ্যটি জানান জেলার প্রথম শ্রেণির আবহাওয়া পর্যাবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাসেল শাহ।
 
বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, ঘন কুয়াশায় আচ্ছন্ন এ সীমান্ত জনপদ। হিম বাতাসে ঝরছে শীতের পারদ। শহর ও গ্রামীণ সড়কগুলোতে যানবাহনগুলোকে হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করতে দেখা গেছে। শীতের তীব্রতায় জর্জরিত শিশু ও বৃদ্ধরা। দুর্ভোগে পড়েছে বিভিন্ন গৃহপালিত ও বন্য প্রাণীরাও।
 
লাগাতার শীতের কারণে দুর্ভোগ বেড়েছে খেটে খাওয়া মানুষদের। কাজকর্ম কমে যাওয়ায় দিন কাটছে অভাব-অনটনের ভেতর। প্রয়োজনের বাইরে শহরের অভিজাত মানুষজন ঘর থেকে বের না হলেও জীবিকার তাগিদে নিম্ন আয়ের মানুষের শীত উপেক্ষা করেই কাজে যেতে হচ্ছে।
 
১০ ডিগ্রির নিচে তাপমাত্রা রেকর্ড হওয়ায় প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান ও বন্ধ ঘোষণা করেছে জেলার শিক্ষা দপ্তর। তবে প্রাইভেট, কোচিং ও শিশু শ্রেণির মাদরাসাগুলোতে শিক্ষার্থীদের যেতে দেখা গেছে।
 
শীতের কারণে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে নিউমোনিয়া, অ্যাজমা, হাঁপানি, শ্বাসকষ্ট ও ডায়রিয়াসহ শীতজনিত বিভিন্ন রোগ। এসব রোগে আক্রান্ত হয়ে জেলার বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন অনেকেই। আয় কমে যাওয়ায় অনেকে শীতজনিত রোগ আক্রান্ত হওয়ার পরও চিকিৎসার ব্যয় মেটাতে হিমশিম খাচ্ছেন।
 
চিকিৎসকরা বলছেন, হাসপাতালে শীতজনিত রোগ নিয়ে প্রচুর রোগী আসছে। বিশেষ করে সর্দি-কাশি, শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হচ্ছে অনেক শিশু। শীত বাড়লে এই রোগ আরও বাড়বে। শীতজনিত রোগ থেকে শিশুদের রক্ষা করতে তাদের ঠাøা থেকে দূরে রাখতে হবে।

মন্তব্য করুন:

সম্পর্কিত খবর